Search

Tandrima

Food, Travel, Poems-Creative Living

Mutton Scrutiny

Mutton Scrutiny is an especial delight for my dear fellow colleagues. I know checking and scrutinising exam copies is more than boring, sometimes depressing, too. I tried to churn fun out of this mechanical obligation for my friends. This recipe will engross you so much in cooking that you won’t find time to feel depressed or bore. So, let’s start our game to feel rejuvenated.IMG_6352 (2).JPG

Ingredients:

Mutton – 1.5 Kg.

Curd – 200 gm (strained in a strainer)

Onion – 5 big pieces.

Garlic – 12 cloves.

Ginger – 2.5 ” cut into small pieces.

Tomato -3 pieces (300 gms cut into small pieces).

Dry Red Chilly Whole – 2 pieces.

Turmeric powder – 4 teaspoon full.

Red chilli powder – 1 tsp.

Kashmiri Lal Mirchi powder – 3 tbsp.

Garam Masala- 1tsp.

Salt, Sugar and Mustard Oil as required.

Scrutiny Masala

  1. Prepare Garlic Ginger Paste.
  2. Cut 2 big onions finely, then fry in oil. Take out the onions when these are brown, don’t over fry or crispy. Make a paste of these fried onions.
  3. Make a paste of 1 big onion and one tomato.

Mutton marination

Wash the mutton pieces and put them in a strainer to get it dry. Marinate it with hung curd, 2 onion finely cut and 1 tsp salt. If you have still many copies to scrutiny and you are in a hurry, marinate it for 30 mins. Otherwise, 1 hour marination is perfect for better taste.

How to cook

  1. Heat oil in a Kadai. Put the g-g paste and sauté on low flame till the oil separates.
  2. Now add the onion-tomato paste and sauté till the masala paste is well fried.
  3. Then put the marinated mutton along with all masala in the Kadai, add turmeric, salt, sugar (2 tsp), red chilli powder, Kashmiri Mirch powder and mix well with a cooking spud.
  4. Sauté for 15 minutes in medium flame till all the masala are mixed well and oil separates.
  5. Add Garam Masala and mix well.
  6. Now put the whole mix in a pressure cooker, add warm water 2 cups.
  7. Then add the fried onion paste and mix within cooker with a spud.
  8. One whistle in full flame, then the second whistle in the lowest flame.

Mutton Scrutiny tastes best with white rice, you can try it with chapatti, too.IMG_6349.JPG

Note:  Remember this recipe is a balance of hot, sour and salted taste, so before closing the lid you may taste it and can add mirch powder or salt whatever is required. This is called real scrutiny.

If you like potato, you can easily add it. Take small potatoes whole and boil them. Then de-skin. Heat oil in a frying pan, add 2 tb sp sugar, let it melt. Fry the potatoes in this caramelised sugar. Sprinkle a pinch of turmeric and salt while frying, it will give the potatoes a rich look.

So, happy cooking and healthy eating.

 

 

First Anniversary of Blogging

Wishing me a very happy anniversary of blogging.Thank you WordPress for reminding me of it. 😊😊

Osian : the ‘Second Khajuraho’

The forgotten temple town of Rajasthan

A diversion off the national highway from Jodhpur to Jaisalmer, 50 km away from Jaisalmer is Osian, a magical village of amazing temples. It is famous for medieval Hindu ( Vaishnava , Siv, Shakti ) and Jain ( Svetambara) temples which were built in Nagari Shali during the Gurjara Pratihara dynasty, 8th to 12th centuries A.D. Osian ranks next to Khajuraho and Bhubaneswar in the number of temples and the quality of architectural value.

I read about Osian before and was dying to visit this aesthetic wonder of Rajasthan. Unfortunately, we reached Osian when the sun was about set, a wrong time to visit architectural designs. However, my undaunted spirit was high enough to neglect all these problems and I just tried to soak Osian as much possible in 1.5 or 2 hours.

Of 108 Hindu temples and 1  Jain temple, only 15 Hindu temples and one Jain temple remain today. But from the Hindu Pujari of the Jain temple, P.Bhanu Prakash Sharma we came to know that Sachiya Mata Temple is the only Hindu temple to see in its good condition.

The Sachiyay Mata Temple

20170319_131921 (2).jpg
The Sachiyay Mata Temple

The Sachiyay Mata temple is situated on the top of a hill and the main temple, ordained with small temples around it, looks wonderful.

The high shallow roof of the mandapa and mahamandapa rests on pillars and are arranged so as to form an octagon and support a shallow dome.

IMG_5435_marked
Lotus designed ceiling at antarala
IMG_5437_marked.jpg
Mandapa Ceiling

This temple has gone through several renovations during all these years. So maybe some outer part of it are not that old and have developed characteristics of the Rajputana temple.

IMG_5410_marked
Entrance Torana 

The pillars and torana at the entrance add distinctive notes that are found only in Rajputana and Gujarat.

IMG_5436_marked.jpg
Apsara Panel
IMG_5430_marked.jpg
Lord Ganesha Statue

Lack of proper preservation is spoiling the beauty of the valuable statues.

The Jain Temple

IMG_5471_marked (3)
Inner Entrance of the Jain Temple

It was then almost dark when we came out of the Sachiyay Mata Temple. As this place is not a popular tourist spot, it is hard to find out what you want to see. A man approached me while coming out from the Sachiyay Mata Temple (probably seeing me capturing pictures), “would you like to go to the Jain Temple?” It was like asking a hungry person to have dinner! He took me to the Jain temple. Here you have to take a Camera pass of Rs.100/-.

IMG_5464_marked
Idol of Mahabir

This temple was built in the last quarter of the eighth century. The calm and quiet atmosphere of this temple may hypnotise you for some time. The inner wall of the temple is decorated with figures of astha dikpalas, tirthankaras, Yakshinis etc.

IMG_5453_marked.jpg
Statue of Yakhshini

The smell of the incense sticks, the silence of the stone and the dim light within the temple create a medieval ambience even in this 21st century.

IMG_5465_marked.jpg
Statue Panel

“A niche in Mahavira Temple contains sculpture of interwined snakes which also is worshipped by Oswal Jain, as adhisthatyaka – devetas. This leads us to believe that a sizeable part of the populace in that period may have belonged to naga extraction.”—Wikipedia.

IMG_5457_marked
Statue of interwined snakes
IMG_5472_marked
Apsara Statue on the torana

 

Interesting Fact:  Though hundreds of Jain people come to worship at this temple every day, not a single Jain lives at this village. It is said that the Jain Saint Ratnaprabbhu Suri came to Upkeshpur Patan(old name of Osian) with his 500 disciples to popularise Jain religion in this area. This area was really a rich and popular town in the Hindu period. However, the saint prayed to Sachiyay Mata (the royal family was her worshipper) for progress. Mata directed the king in his dream to build Tirthankar temple in the midst of the town. She also directed to dig out the statue of the 24th Jain Tirthankara Shri Mahavir from underground. The local Jain people took out the statue but saw a big knot on its chest. As it looked awkward, they cut it and stream of blood began to flow. Because of this the Mata became angry and cursed the Jain people to quit Osian. The Jain people come to Osian to pray at the Jain temple but first, they visit the Sachiyay Mata Temple, offer her manat then they go to their destination.

Though my interaction with Osian was for a very little time, this historical town which is now deserted after the attack of Muhammed of Ghor in 1195, is still haunting me.

Before starting for our hotel in Jodhpur, we tasted Fafda (a Gujarati snack) here. It was awesome with hot roasted masala chilli. ☺

স্বপ্নের যাদুঘরঃ জয়সলমীর ওয়ার মিউজিয়াম

Jaisalmer War Museum:

“ ঢিকিচ্যাঁওওওও…| ঠাঁই ঠাঁই|”শব্দ করতে গিয়ে সারামুখ থুতুতে ভর্তি| বাড়ির মেঝেতে ছড়িয়ে আছে নানা ধরণের বন্দুক ও পিস্তল ; দেওয়ালে পেন্সিল আর প্যাস্টেল দিয়ে  আঁকা মরুভূমি,বাঙ্ক ও ট্যাঙ্ক| গত কয়েক বছর আগেও এই ছিল আমার ছেলের রোজকার খেলা| লোঙ্গেওয়ালা যুদ্ধের বীর জওয়ান লেফটেন্যান্ট ধরমবীর ভানকে বাড়ির ড্রয়িংরুমে দেখতে দেখতে ভুলেই গেছিলাম আসল যুদ্ধক্ষেত্র ছিল জয়সলমীর আর পাকিস্তানের প্রান্তসীমা| তাই জয়সলমীরের যুদ্ধ যাদুঘর আমার ছেলের কাছে সত্যিই যাদুর ঘর, স্বপ্নকে ছুঁয়ে দেখার অনন্য এক সুযোগ|

20161226_123532_marked.jpg

মূলতঃ ১৯৬৫ র ভারত-পাক যুদ্ধ এবং ১৯৭১ এর লোঙ্গেওয়ালা যুদ্ধ র স্মৃতিতেই এই মিউজিয়াম তৈরি | লেফটেন্যান্ট জেনারেল ববি ম্যাথুর পরিকল্পনায় Indian Army র বীরত্ব ও আত্মত্যাগকে চিরস্মরণীয় করে রাখতে ১৯৬৫ র যুদ্ধের সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে এই মিউজিয়াম ২০১৫ র আগষ্ট মাসে জনসাধারনের জন্য উন্মুক্ত করে দেন লেফটেন্যান্ট অজয় সিং|

Indian Army র ঐতিহ্যমন্ডিত ইতিহাসকে খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ হলো এখানে| সুবিশাল সবুজ প্রান্তরের বুকে গড়ে ওঠা এই মিউজিয়ামটিকে বাইরে থেকে দেখলেই ভীষণ গর্ব বোধ হয়|

Souvenir Shop

প্রথমেই আছে Souvenir Shop. এখানে মনোগ্রাম করা T-Shirt, coffee mug , ও অন্যান্য ঘর সাজাবার জিনিস ইত্যাদি পাওয়া যায়|

এখানে ক্যাফেটরিয়াতে কিছু খেয়ে নিতেও পারেন|

এরপর আছে একটি Audio Visual Hall . এখানে ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন যুদ্ধ অভিযানের ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি ডকুমেন্টরি ফিল্ম দেখানো হয়| যা দেখতে দেখতে আমাদের প্রতিবেশি দেশ পাকিস্তান আর চীন সম্পর্কে তীক্ততা যেমন বাড়বে, তেমন ভারত সম্পর্কে গর্ব আরো দৃঢ় ভিত্তিতে আবার নতুন করে গড়ে উঠবে|

এরপর আছে দুটি দর্শনীয় হল— Indian Army Hall এবং Laungewala Hall.

Indian Army Hall

 

IMG_5386_marked.jpg
বাঙ্কারের পাশে ঃ Indian Army Hall

 

এখানে ১৯৪৭ থেকে ১৯৯৯ পর্যন্ত ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন লড়াই  এর স্মারকগুলো সংরক্ষিত আছে| বিজেতা দেশ এর ব্যবহৃত অস্ত্র, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে সেনাবাহিনীর অবদান এখানে পরম যত্নে রাখা আছে|

৩২০ খ্রীষ্ট পূর্বাব্দ থেকে কি কি ভাবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ক্রমবিবর্তন  হয়েছে তা ভীষণ সুন্দর ভাবে এখানে বর্ণিত আছে|

IMG_5382_marked.jpg
ভারতীয় সেনার ক্রমবিবর্তন

 

  • The Ancient Beginning (320 BC -1600AD)

প্রাচীন ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঐতিহ্য গৌরবময়| মৌর্য, গুপ্ত, নন্দ বংশ থেকে শুরু করে রাজপুত, চোল, মারাঠা বাহিনীর উজ্জ্বল শৌর্য পেরিয়ে মোঘল যুগ পর্যন্ত ভারতীয় সেনাবাহিনী বিচিত্রভাবে ক্রমউন্নতি করেছে|

  • The Presidency Army (1600-1857)

ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনকালে ভারতবর্ষকে তিনটি প্রেসিডেন্সিতে ভাগ করা হয়েছিল—কোলকাতা, মাদ্রাজ ও বোম্বাই| প্রতিটি প্রেসিডেন্সির আলাদা সেনাদল গঠন করা হয়েছিল| সম্ভবতঃ প্রেসিডেন্সি সেনাদলই প্রথম প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সর্বভারতীয় সেনাদল|

IMG_5369_marked.jpg
লাল পল্টন

 

এরপর ১৭৫৭ সালে রবার্ট ক্লাইভ সেনাবাহিনীর পুনর্বিন্যাস করেন ও ব্রিটিশ সেনার অনুকরণে সেনাদের লাল কোর্ট পরান—-এদের নাম হয় “লাল পল্টন” |

  • British Indian Army (1857-1897)

১৮৫৭ র বিদ্রোহের পরে মহারাণি ভিক্টোরিয়া ভারতের শাসনভার ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হাত থেকে নেওয়ার পরে এই বাহিনীর নামকরণ করা হয়—British Indian Army. এই বাহিনী এর পর আফ্রিকা, চীন , বার্মা ও আফগান যুদ্ধে একের পর এক জয়  এনে দেয় মহারানীকে|

১৮৯৫ সালে সেনাবাহিনীকে পাঞ্জাব, বেঙ্গল, মাদ্রাজ ও বোম্বাই বাহিনী নামকরণ করে বিভক্ত করা হয়|

  • First Reorganisation of the Indian Army in 1903 in the First World War (1900-1918)

১৯০২ সালে Lord Kitchener ভারতীয় সেনাবাহিনীর  Commander-in-chief হয়ে আসেন এবং মাদ্রাজ, মারাঠা, রাজপুতানা, বেঙ্গল ইনফ্যান্ট্রি ,জাঠ, গাড়োয়ালি বিভিন্ন নামে সেনাবাহিনীকে পুনরায় সাজান ও পুনঃপ্রতিস্থাপণ করেন|IMG_5375_marked.jpg

  • 1918-1944 Second Reorganisation and Second World War

IMG_5380_marked.jpg

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর কম্যান্ডার-ইন-চীফ রওলিনসন এর নেতৃত্বে সেনাবাহিনী আধুনিক ভারতীয় সেনাবাহিনীর রূপ পায়| এই সময় Panjab, Madras, Grenadiers, Maratha Light Infantry , Rajputana rifles, Gurkhas,Rajput ইত্যাদি নামে অভিজ্ঞতা অনুসারে সেনাবাহিনীকে আধুনিক ভাবে গড়ে তোলা হয়|

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এই বাহিনী ব্রিটিশ সরকার এর হয়ে ইতালীর বিরুদ্ধে সোমালিল্যান্ড, এরিট্রিয়া,আবিসিনিয়া এবং উত্তর আফ্রিকাতে বীরত্ব প্রদর্শন করে| গোর্খাবাহিনীর বিশেষ দক্ষতায় জাপান দক্ষিণ এশিয়ার দিকে অগ্রসর হতে বাধা পায়|

  • 1947 onwards –Indian Army marching to the Future

১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা পাবার পর ভারতীয় সেনাবাহিনীর খোলনলচে বদলে এক বিশাল ,সুদক্ষ, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও নির্ভীক সেনাবাহিনী গড়ে তোলা হয়| ১৯৪৭-৪৮ সালে ইন্দো-পাক,১৯৬২ তে ইন্দো-চীন, ১৯৬৫ তে আবার ইন্দো-পাক, ১৯৭১ এ বাংলাদেশ এর স্বাধীনতা যুদ্ধে সহায়তা, ১৯৯৯ সালে কার্গিল যুদ্ধ —-সব ক্ষেত্রেই ভারতীয় জওয়ানরা তাদের বীরত্ব দিয়ে দেশকে বারবার শত্রুর হাত থেকে রক্ষা করেছে|

20161226_121924_marked.jpg
১৯৬২ র ভারত-চীন যুদ্ধে চীনের ব্যবহৃত অস্ত্র

 

এই হলে সাজানো আছে শত্রু পক্ষের কাছ থকে উদ্ধার করা অস্ত্র এবং কিছু উল্লেখযোগ্য ভারতীয় অস্ত্র|20161226_121942_marked.jpg

আছে সিয়াচেন এর মৃত্যুশীতল এলাকায় সেনাদের পরিহিত পোষাক এবং নিউক্লিয়ার ,বায়োলজিক্যাল ,কেমিক্যাল আবহাওয়াতে কাজ করার পোষাক|20161226_121108_marked.jpg20161226_121319_marked.jpg

১৯৬২ ও ১৯৬৫ র যুদ্ধের বিবরণ|

 

20161226_120807_marked.jpg
আমাদের সুরক্ষিত ঘুমের প্রহরী

 

শুধু যুদ্ধ নয় আপদকালীন পরিস্থিতিতেও সেনাদের অবদান এর কথা এখানে বর্ণিত আছে|”country before the self”–এই মন্ত্রে দীক্ষিত ভারতীয় সেনার জীবন|

img_5385_marked

এত আত্মত্যাগ, এত ভালোবাসা, এত সাহসের সাক্ষী হতে হতে চোখ আপনা থেকেই জলে ভরে আসে|

20161226_122717_marked.jpg

Loungewala Hall

20161226_122552

লোঙ্গেওয়ালার যুদ্ধ,১৯৭১… বাংলাদেশের মুক্তি বাহিনীকে সাহায্য করছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী| তখন ও পূর্ব পাকিস্তান নামে বাংলাদেশ পশ্চিম পাকিস্তানের অন্তর্গত| ভারতীয় বাহিনীর শক্তিতে ভয় পেয়ে পাকিস্তানী প্রেসিডেন্ট ইয়াইয়া খান প্রমাদ গুনলেন| ভারতকে বেকায়দায় ফেলার জন্য পশ্চিম প্রান্ত দিয়ে আক্রমণ করে দখল করতে চাইলেন ভারতীয় ভূ-খন্ড | এতে পূর্বদিকে সৈন্য সরানোর জন্য ভারতের ওপর চাপ সৃষ্টি করা সুবিধাজনক হবে|

১৯৭১ এর ৪ঠা ডিসেম্বর রাত সাড়ে বারোটায় ২০০০ পাকিস্তানি সেনা লোঙ্গেওয়ালা পোষ্ট আক্রমণ করলো| কিন্তু হিসেবে পাকিস্তানি বাহিনীর অনেক ভুল ছিল|

১। থর মরুভূমির নরম বালি পাকিস্তানি ট্যাঙ্কের গতি বারবার রূদ্ধ করছিল|

২| মেজর কুলদীপ সিং চাঁদপুরির ভারতীয় সেনারা সংখ্যায় কম হলেও তারা অপেক্ষাকৃত উঁচু বালিয়াড়ি থেকে যুদ্ধ করছিল যা শত্রুপক্ষকে হারাতে সাহায্য করে|

৩| পাকিস্তানি গোয়েন্দাবাহিনীর কাছে খবরই ছিল না যে  ভারতীয় যুদ্ধবিমান কাছাকাছিই আছে|

মাত্র ১২০ জন সেনা নিয়ে একটা গোটা রাত মেজর চাঁদপুরির নির্দেশে লেফটেন্যান্ট ধরমবীর, ক্যাপ্টেন ভৈঁরো সিং, সুবেদার রতন সিং এর মত অফিসারেরা জীবন বিপন্ন করে ভারতের জয় নিশ্চিত করেন| পরদিন সকালে HAL Marut aircraft এর আক্রমণের পর ৩৬ টি পাকিস্তানি ট্যাঙ্ক, ৫০০ র ও বেশি পাকিস্তানি যুদ্ধযান এবং ২০০ সৈন্য ভারতের মাটিতে বলিদান দিয়ে  পাকিস্তান পিছু হটতে বাধ্য হয় যেমন চিরকাল হয়ে এসেছে|

 

IMG_5397_marked.jpg
HAL Marut Aircraft

 

এই যুদ্ধের খুঁটিনাটি সমস্ত তথ্য দিয়ে সাজানো এই লোঙ্গেওয়ালা হল|

20161226_122804.jpg

106mm M40 RCL gun যা পাকিস্তানি সেনাদের ভয় পাইয়ে দিয়েছিল

IMG_5393.jpg

106mm M40 RCL gun

 

 

এই হল থেকে বেরিয়ে সমস্ত চত্বর জুড়ে দেখতে পাওয়া যাবে বিজিত  শত্রু পক্ষের যুদ্ধযান, ভারতীয় যুদ্ধযান ইত্যাদি|

 

 

20161226_123444.jpg
ভারত -চীন যুদ্ধের বীর নায়ক

 

জয়সলমীর যুদ্ধ সংগ্রহশালা দেখে বেরিয়ে হাঁটার সময় খেয়াল করলাম আমার উচ্চতা একটু বেড়ে গেছে, মাথাটা উঁচু আর শিরদাঁড়াটা ভারতের জাতীয় পতাকা বহনকারী দন্ডের মত ঋজু—আমার শতকোটি প্রণাম ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রত্যেক বীর জওয়ানকে|

 

IMG_5392.jpg
স্বপ্নের ভারতঃ আমার ভারত

 

 

 

 

 

 

 

Mesmerising Bikaner: Exploring Rajasthan through a family tour

 

After spending a full day at Jaipur, we started for Bikaner in the next morning. A breakfast with Aloo Paratha, Curd, Various Veg Pakora at a good roadside Dhaba would give you the joy for your stomach. It will also save your time from lunch time to accelerate your wanderlust.

20161223_112147
Breakfast at the roadside Dhaba

 

The distance between Jaipur to Bikaner is 335 Km(approx..) by road and a Tempo Traveller takes 6 hr to 6.30 hr. Such a long journey is never boring as the road (NH 11) is wide, hassle-free and comfortable. We took our breakfast and began our journey through the Aravallis to the desert-city Bikaner.

20161224_145751.jpg
Comfortable roads

 

National Research Centre on Camel

20161223_175354
National Research Centre on Camel

 

We reached at NRCC around 4 pm. Ice cream made of camel milk is available at the ticket counter at the entrance. While licking the milk ice cream, I realised that I have ignored Camel always, never ever gave any importance to this ship of the desert. Feeling guilty of my ignorance, Camel.I devoured another ice- cream and I vowed to learn as much possible about Camel.Here we found 4 types of camels: Bikaneri, Jaisalmeri, Kachchhi and Mewari. The guide will help you how to identify each of its types. A newborn Camel baby, born just 6 hours ago, was being cuddled by its mum and neighbours— charm of life is the charm of life.

img_4702
With the newborn

 

This is the usefulness of drinking camel milk.

camel-milk
Benefits of drinking camel milk

 

All these reminded me of an incident of my childhood. We used to live in a suburban town and my father had to catch  hugely crowded local trains to reach the city to his workplace. Out of frustration he often fantasised,” Soon I’m going to buy a camel to go to my office.” I was always confused why he choose camel leaving other fast animals. At the NRCC I found my answer…..royalty and grandeur. My father wanted to beat the middle-class daily drudgery by selecting Camel as his transport. When I said all these to him standing at NRCC, he casually said, “Why don’t you ask them if they sell camels?” I didn’t but felt proud to know the world of camels.

Bags, shoes, hair clips, shawls etc. are available at the souvenir shop here. These are made of camel fur, bone and leather. Something can be taken as a memoir or gift as the price is reasonable.

img_4714
Souvenir Shop at NRCC

 

Museum

Camels eat various kinds of crops and grasses and all these are exhibited at the museum.

20161223_174207
This is what camels eat

Historical moments where camels showed their bravery are also picturized here. The museum is small but informative.

img_4719
Artefact made of Camel Leather
img_4716
Artefact made of Camel Bone

 

The project is simply great and entertaining.

Karnimata Temple:

A temple full of rats, rats are taken care of, rat-eaten Prasad in high demand, people wait long to see white rats—- sounds impossible?  Very much possible at Karni Mata Temple at Deshnok Gunge, Bikaner. Karnimata was a sage and honoured by the royal family. She is still worshipped as the reincarnation of Devi Durga. There are two more temples of Karnimata, one at Machla Hill in Udaipur and the other at Alwar district in Rajasthan.

img_4726
Karnimata Temple

 

The open area of the temple is covered by a net to save the rats from preying birds. Rats have special importance as they are living, in the guise of rats here under the instruction of the Karnimata. It happens in India only, a land of faith and worship.

img_4731
The Karnimata Idol with holy rats
img_4738
Mice at the temple

 

A local Rajasthani singer is accompanied by a drum player with a big copper drum. The total affair is really—mouse-ical!!

img_4743
Musicians at Karni Mata Temple

 

Back to our hotel found that Lal Garh palace was glowing at night not very far from our hotel.

Lal Garh Palace:

img_4747
Lalgarh Palace at Night

 

Built in red sandstone, among the lush green arena, the palace looks gorgeous and elegant. Presently, the royal family resides here and some part of the palace is used as the heritage hotel.

img_4758
Lalgarh Palace in the daytime

 

Sadul museum here displays various artefacts of three successive Maharajas of Bikaner i.e. Maharaja Ganga Singhji, Maharaja Sadul Singhji & Maharaja Karni Singhji in 22 rooms.

img_4756
In front of the Sadul Museum

 

Junagarh Fort:

img_4777
The Junagarh Fort

 

Formidable is an underrated word for Junagarh fort, ‘awestruck’ is the correct one for me. Yes, this is a fort at land unlike the most of the Rajasthani forts on hilltops, in front of which I stood mesmerised for moments. Built in1588 A.D by Raja Rai Singh, a general in the army of emperor Akbar, is encircled by a moat and has some beautiful palaces within.

20161224_110002.jpg
Junagarh Fort

 

A guide- manual or audio is a must here. Entering through the first gate of the fort there are stairs built in Rajasthani Style.

img_4868
Criss cross stairs at Junagarh Fort: Rajasthani Architecture

 

Now I am going to describe the palaces within this fort as we have seen them.

Karan Mahal

img_4780
In front of the Karan Mahal

 

 

This palace is a blending of Rajasthani and Mughal Architecture. Maharaja Gaj Singhji hired craftsmen of the Mughals Court from Delhi and Lahore and employed them to built this palace. Four Chatris and a small water tank is decorated here for the King to play Holi with the queens.

20161224_112652
One of the Chattris

 

Phool Mahal

I am sure no one can leave this palace without imagining himself or herself as a prince or a princess of any fairy tale. A palace decorated with colourful flower pots, flowers and designs will take away you to an imaginary land of dream.

img_4787
Phool Mahal

 

Anoop Mahal

I couldn’t think of coming back to my city when I was standing at Anoop Mahal. A world of golden fancy, a colourful repose to one who has been long in the city pent, was hypnotic. It is a must see if you come to Bikaner even for once.

img_4790
Anoop Mahal

 

Badal Mahal

Most part of Rajasthan is in the dry arid region. Therefore, scarcity of rain is a matter here. This palace was painted in blue with the idol of the Laxmi-Narayana to pray for rain to the rain god.

20161224_114046
The idol of Laxmi-Narayana at Badal Mahal

 

Gaj Mandir

This palace was built exclusively for Maharaja Gaj Singhji and his two queens.

img_4811
Gaj Mandir

 

Dungar Niwas

This was the room of Maharaja Dungar Singhji, the founder of modern Bikaner. This palace is mainly designed on white. A mirror is placed at the top of each alcove in the walls. The image of the ruler used to reflect in these mirrors – an example of Narcissism. Now all these are yours. If you have the camera in your hand standing in front of the mirror then the mirror will take you as the king ( or the queen).

20161224_113317
Mirror at the Dungar Niwas

 

Darbar Hall

Here the sandalwood throne of Rao Bika, the founder of Bikaner is displayed. Some weapons of the royal family are also preserved. There is Vikram Vilas, it housed the collection of war souvenirs, elephant howdah .

img_4849
The Sandal Wood throne

 

Junagarh Fort Museum

Armoury

img_4845
Armoury 1

 

Displaying armoury is an art and when it reaches at the correct level, it gives a feeling of enjoyment not fear.

img_4836
Armoury 2

 

Rao Bikaji Heirloom Farmans Trust

img_4860
Telegraphic Machine

 

At the beginning of the 20th century the royal family left this fort and went to Lalgarh Palace for ever but donated the royal things under the guidance of the Trust for to exhibit them to the public.

img_4861
The Royal Dinning Table

 

Transportation

img_4864
A Palanquin

 

The fort museum houses the transports preserved and used by the royal family. Different palanquins are there. Among these were the  Havilland helicopter that caught my attention. During the World war I, Maharaja Ganga Singhji helped the British with his Bikaner State Force and as a prize, after the war, he was given some souvenirs among which were the shot down parts of two DH-9DE Havilland war Planes. Under the guidance of Maharaja Karni Singhji, the craftsmen assembled one Havilland Plane in 1985 and now it is displayed in the museum. A prized possession is a Prize to be restored.

img_4862
Havilland  Helicopter

 

 

To fill the sense of vacuum, after seeing this fort we were little confused. Then Satyajit Ray, the great Oscar-winning film director came to our rescue. Our driver was very interested in showing us the temple of Baba Ramdev (not the Patanjali one), as we heard that it was near the Ramdevra Railway Station, we agreed.

20161224_184839
The Ramdevbaba Temple

After visiting the temple, we almost ran to the railway station where some part of the movie ‘Sonar Kella” (Bengali Detective Movie) was shot. In the chilling December night, standing on the platform of Ramdevra is a wonderful feeling, a craze which only those who have seen that movie can feel.

img_4893
Ramdevra Railway Platform
img_4892
Maybe Mandar Bose,the villain of the movie-Sonar Kella by Satyajit Ray

 

This is what Bikaner has offered me and it is a lifetime treasure for me.

Please read my travel account of Jaipur A family tour to Rajasthan: Jaipur and enjoy Rajasthan.

রাজস্থান ভ্রমণঃজয়সলমীর

“ঐ তো ! ওটাই তো !” বলে উঠল আমার ছেলে| সবার চোখ তখন সেদিকেই| রাতের জয়সলমীর শহর এর বুকে সূর্যের মত উজ্জ্বল হয়ে জ্বলছে ‘সোনার কেল্লা’ | কি অপূর্ব শোভা | এক অনাবিল আনন্দে ভাসতে ভাসতে চললাম হোটেলের দিকে|

IMG_5349_marked.jpg
The Golden Fortress: Jaisalmer Fort

হনুমান সার্কেল এর কাছে শাহী প্যালেস- আমাদের দুদিনের আস্তানা| হলুদ বেলে পাথরে তৈরি হোটেল | চওড়া বারান্দা আর ছাদের ওপরে সুন্দর খাওয়ার বন্দোবস্ত, এমন কি চাইলে ক্যাম্প ফায়ার এর ও জোগাড় করে দেবে এরা|

সকালে জলখাবার খেয়ে বেরিয়ে পড়লাম সোনার কেল্লা দেখতে| বড় গাড়ি দূরে রেখে কিছুটা পথ হেঁটে কেল্লা পৌঁছোতে হয়| অটো করে কেল্লার ভেতরে যাওয়ার ব্যবস্থা ও আছে|

জয়সলমীর ফোর্ট ; সোনার কেল্লা

Aviary Photo_131323433818806534_marked.png
The Jaisalmer Fort in the Sunlight

ভাট্টিরাজাদের রাজধানী জয়সলমীর| ভাট্টি রাজারা যাদব বংশের তাই এদের বংশ পরিচয় শ্রীকৃষ্ণ থেকে শুরু হয়|IMG_4931_marked.jpg

মহারাওয়াল জয়সল সিং স্থানীয় এক সাধু এর আদেশে লোধূর্বা থেকে তাঁর রাজত্ব সরিয়ে এনে  ত্রিকূট পর্বতের উপরে  ১১৫৬ খ্রিঃ জয়সলমীর শহরে তাঁর কেল্লা গড়ে তোলেন| রাজার নাম থেকে ‘জয়সল’ আর ‘মেরু’ (পাহাড়) থেকে ‘মীর’ এই দুই মিলে শহরের নাম হয়েছে জয়সলমীর|  লোধূর্বার থেকে জয়সলমীর সব দিক থেকে অনেক বেশি সুরক্ষিত শহর| কেল্লার আকার ত্রিকূট পর্বতের সঙ্গে মিল রেখে তিনকোনা |

IMG_4929_marked.jpg
Maharawal Jaisal Singh

 

IMG_4997_marked.jpg
Miniature Map of Jaisalmer Fort

 

 

ফোর্ট এর  প্রবেশ পথে চারটি গেট আছে- অক্ষয় পোল, সুরজ পোল, গণেশ পোল ও হাওয়া পোল|  হাওয়া পোল পেরিয়ে কেল্লার ভেতরে দশেরা চকে পৌঁছোলে একটু স্বপ্নভঙ্গ হতে পারে| বাইক, অটো, বিভিন্ন মনিহারি জিনিসের দোকান, খাবার দোকান কি নেই! আসলে জুনাগড় আর জয়সলমীর ফোর্ট এর মধ্যে অনেক তফাৎ — এই কেল্লাতে যে কয়েক হাজার মানুষের বসত বাড়ি|  বিশাল এই কেল্লা বর্তমানে UNESCO World heritage site হিসেবে সম্মান পেয়েছে|

দশেরা চকে পৌঁছে দুই দিকে দুই মহল -রাজার মহল আর রাণীর মহল|

IMG_4911_marked.jpg
King’s Palace

 

প্রায় সব রাজস্থানী ফোর্টেই এই দুই মহল মুখোমুখি দেখতে পাবেন| তবে মজার ব্যাপার হচ্ছে তফাৎ দেখবেন জাফরি বা জালি কাজে| রাজার মহল অনেক খোলামেলা—অনেকটা দক্ষিণ কোলকাতার মত আর রাণীর মহলে জালি কাজ সূক্ষ্ম,বেশ একটা দমবন্ধ করা ভাব ,মিল আছে উত্তর কোলকাতার সঙ্গে ( উত্তরের মাননীয় মানুষেরা কিছু মনে করবেন না,প্লিজ|)

IMG_4912_marked.jpg
Queen’s Palace

 

জয়সলমীর ফোর্ট মিউজিয়াম

IMG_4920_marked.jpg
Armoury

এই মিউজিয়াম জুনাগড়ের তুলনায় বেশ ছোট |

IMG_4921_marked.jpg
Silver throne

 

 

20161225_124108_marked.jpg
Royal Bed of Silver

রাজার বিছানা আর খাবার পাত্র রূপার তৈরি| কিন্তু এখানে  আরো অনেক মিউজিয়ামে ও দেখেছি রাজার এত কিছু রাজকীয় ব্যাপারসাপার কিন্তু বিছানার বেলায় কার্পণ্য , বড্ড বেশি কার্পণ্য| ছোট্ট ও নিচু শয্যা দেখে আমরা ভাবছিলাম কার না কার বিছানা রেখে দিয়ে রাজার বিছানা বলে চালাচ্ছে| কিন্তু গাইড যখন ব্যাখ্যা করল পুরো ব্যাপার টা জলের মত হয়ে গেল|

১) রাজার শয্যা ছোট হলে রাজার পা দুটি বাইরে থাকত শত্রু যদি ঘুমের মাঝে রাজাকে বিছানার সংগে বেঁধেও ফেলে, রাজা ঘুম ভাঙলেই পা মাটিতে দিয়ে উঠে দাঁড়াতে পারতেন|

২) নিচু শয্যা হবার কারণে কেউ তার নিচে লুকিয়ে থাকতে পারতো না|

৩) রূপার পাত্রে পরিবেশিত খাবারে যদি বিষ থাকে তাহলে রূপার পাত্রের রং সংগে সংগে বদলে যাবে |

ফিজিক্স আর কেমিষ্ট্রি মিলে পুরো ব্যাপারটা সহজ হলো কি না !

মিউজিয়ামে বেশ কিছু পাথরের মূর্তি আর প্যানেল আছে| রামচন্দ্রের দাড়িওলা ও নাথুলালজী মার্কা গোঁফ সমেত রূপ এর আগে কখনো দেখি নি|

Aviary Photo_131323436847841980_marked.png
RamaChandra and Apsaras

 

 

20161225_124758_marked.jpg
Female Dancers

 

কেল্লার ভেতরে বেশ কিছু দেখবার মত হাভেলি আছে যা রাজার অনুমতি নিয়ে ধনী ব্যবসায়ীরা বানিয়েছিল| এদের মধ্যে নাথমলজী কি হাভেলি, পাটোয়া কি হাভেলি ইত্যাদি বিখ্যাত|

মুকুলের বাড়ির ভগ্নাংশ ও দেখতে পাবেন|

IMG_5016_marked.jpg
Mukul’s House

 

আর আছে জৈনমন্দির |

jain temple_marked.jpg
Jain Temples at Jaisalmer Fort

 

তবে মনটা খুব ভারী হয়ে গেলো সোনার কেল্লার ভিতরের দশা দেখে| খুব তাড়াতাড়ি ভেঙে পড়ছে রাণির মহল ও অন্যান্য অংশ|

 

IMG_4972_marked.jpg
A view of Jaisalmer City from the top of the fort

 

 

wp-image-74671215jpg.jpg
Kamicha Player

 

অনেক ছবিতে এনাকেই দেখেছি, ঠিক এই ভাবেই| আমিও তাঁকে ক্যামেরা বন্দি করলাম কেল্লা থেকে বেরিয়েই| কামিচাতে সুর তুলছেন-“পাধারো মারে দেশ, কেশরিয়া বালম” | খানিক আনমনা হয়ে চলছি, সামনেই দেখি মোনালিসা, রাজস্থানী মোনালিসা| বললুম,” কেমন লাগছে এই সাজে?” উত্তর দিলো ,”awesome”—যুগের হাওয়া মরুর হাওয়ার থেকেও জোরে বইছে!!20170107_005320.jpg

মরু সফর :থর মরুর বুকে খুরিতে

IMG_5024_marked.jpg
Listening to the wind of change : on the way to the desert

খুরি পৌঁছোতে বিকেল ৪টে বেজে গেলো| দূর্গাজী আমাদের নিয়ে গেলেন  Garh Marwar Resort and Desert Camp এ| এদের প্যাকেজ – Camel safari, Desert Folk Dance and Song and Dinner | জন প্রতি মোটামুটি ১৫০০-২০০০ টাকা|

প্রচন্ড উত্তেজনায় ফুটছি সকলে আর খুব হাসাহাসি চলছে লালমোহনবাবুর উটে চড়ার ঘটনা মনে করে| এর মধ্যে উট চলে এসেছে | আমার ননদ আর ননদাই এর ওঠা দেখে হাসিটা একটু স্তিমিত হল| আমার ছেলে আর আমি যখন উঠলাম তখন মনে মনে ভগবান কে ডাকছি| অনেকক্ষণ পরে যখন দেখলাম ভয় একটু কমেছে তখন খেয়াল করলাম এতক্ষণ মনে মনে “জয় বাবা লালুনাথ” বলেছি— ভয়ে পড়লে এমনই হয় !!IMG_5075_marked.jpg

একবার ঠিকঠাক চড়ে ফেললে আর ভয় পাবার কিছু নেই , সত্যি| বেশ মজাদার ব্যাপার| উটে টানা গাড়িও আছে মরুভূমির বুকে নিয়ে যাবার জন্য|IMG_5173.JPG

মরুভূমিতে উটের পিঠে চড়ার অভিজ্ঞতা আসলে শুধু উটে চড়া নয়ঃ এই অভিজ্ঞতা মানে চারদিকে বালির সাগর , ডুবে যাওয়া সূর্যের রক্তিমাভা, বালিয়াড়ির মধ্যে হাওয়ার তুলি টানা আর ঠান্ডা বালিতে পা ডুবিয়ে হঠাত খেয়াল করা –প্রকৃতি কি বিশাল! কত ছোট ছোট চিন্তার জালে নিজেদের বেঁধে রেখে ভুলে থাকি এই বিশালত্ব! একবার অবশ্যই যাবেন মরুর বুকে, কোঁচকানো মনটা ডানা মেলে মন ফকিরা হয়ে যাবে| তাকে ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব পাশের কাউকে দিয়ে রাখবেন আগে থেকে| সাবধানের মার নেই|img_5091_marked

মরু জলসাঃ

IMG_5185_marked.jpg
Folk song and Dance at Garh Marwar Resort : Khuri

উদাত্ত কন্ঠে রাজস্থানী লোকগীতি সঙ্গে বিভিন্ন রকমের পকোড়া আর কফি – ২৫শে ডিসেম্বর এর পার্ক স্ট্রীটকে ছাপিয়ে গেলো| নৃত্য শিল্পীদের রঙীন পোষাক, চোখের ভঙ্গিমা আর শারীরিক দক্ষতা দেখে ক্যামেরায় চোখ রাখতে ভুলেই যাচ্ছিলাম| গানে, নাচে ও শিল্পকলার পেলব কারুকার্যে এখানকার লোকশিল্পীরা অনবদ্য|  এই সব দেখতে দেখতে ঘন্টা চারেক সময় কখন কেটে যাবে বুঝতেই পারবেন না|

IMG_5291_marked.jpg
Dancing on saucers and glasses

 

 

IMG_5195_marked.jpg
Playing Khartal

রাতের খাবার ও বেশ ভালো তবে নিরামিষ| পানীয়ের ব্যবস্থা ও আছে|

 

সব শেষে শিল্পীরা সমস্ত দর্শকে নিয়ে আগুন ঘিরে নাচতে নাচতে বিদায় জানায় অতিথিদের|

এখানে রাতে Desert Camp এ থাকার অত্যন্ত সুবন্দোবস্ত আছে|

মিনিট ৪৫ এর মধ্যে আবার ফিরে এলাম শাহী মহলে,আসার সময় আবার দেখা হয়ে গেল| রাতের সোনার কেল্লা যেন রূপকথার প্রাসাদ|IMG_5347_marked.jpg

গাদিসর লেক

এবার জয়সলমীরকে বিদায় জানানোর পালা| পরের দিন সকালে (২৬ শে ডিসেম্বর) হোটেলে জলখাবার খেয়ে দেখতে গেলাম গাদিসর লেক| বেশ পরিস্কার ও মনোরম|

IMG_5355_marked.jpg
Gadisar Lake

 

গাদিসর লেকের চারপাশে প্রচুর দোকান আছে, পাওয়া যায় নানারকমের রাজস্থানী গয়না, রঙীন রাজস্থানী পাগড়ি, এখানে রাজস্থানী সাজে সেজে ছবি তোলার ব্যবস্থা ও রয়েছে| আর দেখতে পেলাম রাবণহাতা বাজানো|

IMG_5358_marked.jpg
Rajasthani Turban

 

 

IMG_5356_marked.jpg
Playing Ravanhata

এইসব দেখে আমরা যাবো যোধপুর| জয়সলমীর -যোধপুর হাইওয়েতে যাবার পথে দেখবো Jaisalmer War Museum। কিন্তু সেখানে যা দেখেছি, যা অনুভব করেছি তা বলবো পরবর্তী পর্বে| এই মিউজিয়াম সম্বন্ধে আমায় লিখে রাখতেই হবে, আমার ছেলের জন্য|

IMG_4994_marked.jpg
Sonar Kella

 

 

 

 

A family tour to Rajasthan: Jaipur

A family tour to Rajasthan: Jaipur

Jaipur, the pink city of India, is the best place to visit first when you are heading for your Rajasthan trip. There are a lot of reasons for this but the most important one is: This city has a blending of India and Rajasthan in its essence. It is nearer to Delhi so it has a cosmopolitan spirit. One or two days stay at Jaipur will introduce you to the nature of Rajasthan. Bikaner is more Rajasthani in its flavour. Many people start their journey from Bikaner. The difference is like learning to swim in a swimming pool holding the handle and jumping in a river for the first time to learn swimming. However, the choice is yours as in this case you are not going to be drowned in any way. But we could not go for this kind of adventure as we had a group of mixed ages.

You will feel excited on your way to the city from the airport as on this way many buildings (colleges, Universities etc.) have fort like designs, the curved design on the guard walls. Even the number of small and nameless forts are not less. But this portion of the city is not pink. The older Jaipur i,e the centre of the city is painted in pink.

chitra-katha
Hotel Chitra Katha

 

We choose a boutique hotel Chitra Katha ( speaking through picture) and it is really well decorated with beautiful pictures. It is a small but cosy nest.

There is a small fort behind this hotel and it attracted me much for its ghostly smile.

img_4503
A fort with a ghostly smile

 

We started our Jaipur City tour from Jantar Mantar. A guide is a must if you want to understand the appeal of Rajasthan. As we were 10 in number, we booked a Tempo Traveller and the company provided us with a guide for the whole day tour. Otherwise, a guide is available at the cost of Rs.500/-.

Jantar Mantar

The King of Jaipur, the second Jai Singh built five Jantar Mantar (Astronomical Observatory) from 1724 to 1735 A.D.in Delhi, Jaipur, Ujjain, Mathura and Banaras. We marched into the biggest of them on a fine December Morning with our guide.

img_4531
Jantar Mantar : Jaipur

 

Here they have total 19 astronomical instruments. The guide will explain very diligently the application of most of them. If you have always respected  Maths as a subject and tried to keep safe distance ever, don’t worry even then you are going to enjoy this observatory very much. This place will raise awe to the older schools. They neither had satellites nor developed technologies still they invented ways for perfect calculation. You will feel interested as some of the calculations you yourself can do there.

img_4519
Jai Prakash Yantra

 

Jai Prakash Yantra helps to measure altitudes, azimuths, hour angles and declinations. There are other instruments like Brihat Samrat Yantra, Digamsha Yantra etc and the biggest Sun Dial of the world.

img_4509
The biggest Sun Dial

 

After “much ado about” “ measure to measure”, you can sit near the Rashi Yantra for a little rest. You may catch the sight of a dancing Damsel Crane here. Take out your camera slowly, no need to hurry for it will surely entertain you with various poses with leisure.

img_4538
Damsel Crane

 

Jaipur City Palace

City Palace is a combination of red and pink sandstone, it a fusion of Rajput, Mughal and Indian Architecture. Bengali Architect Vidhyadhar Bhattacharya was one of the main architects whom Maharaja Sawai Jai Singh II appointed to build the city and the palaces.

img_4585
Sabha Niwas

 

Two palaces are attractive: Mubarak Mahal and Chandra Mahal. Our guide first took us to Mubarak Mahal and introduced t as the Textile Palace. Expensive royal garments, dresses, embroidered Kashmiri pashmina shawls etc. are exhibited here. And there is the royal dress of Maharaja Sawai Madho Singh I! It can be a source of instigation to avoid a slimming diet chart. He was 3.9 feet wide and weighed 250 kg. Our guide added with awe and pride, “ Inka ek shaw aath bibiya tha.”( He had 108 queens).

img_4559
Mubarak Mahal

 

There is Armoury Mahal, a museum for royal weapons. The remarkable thing to see is two enormous silver urns kept in Diwan-i-aam. They each weighed 340 kg and can contain 4000-litre water.  Maharaja Sawai Madho Singh II took the Ganga river water for drinking purposes in these two urns when he went to England for Edward VII’s coronation. He was a staunch Hindu and believed that English water was not safe for his religious faith. It reminded me of Jim Corbett’s My India. There he described how valuable the Ganga river water was to the Hindu maharajas. It was one of the important goods of transport on the Mokama Ghat.

img_4575
The Silver Urn

 

Most part of Chandra Mahal is reserved as a residence of the royal family. Here the entrance fee is Rs.2000/- per person. Visitors can have lunch in a cafeteria here.

img_4572
Diwan-i-Aam

 

If you are a tourist with the Maharaja Express or Palace on Wheels, here a grand royal reception is waiting for you with decorated camels, horses along with local musicians and the most eye-catching kachchi ghodi dance.

img_4557
Kachchi Ghodi Dance

 

Every bit of it will make you feel royal, even if you are an observer of this treat.  Don’t miss the chance to know the royal you.

img_4561
Royal Welcome to the Jaipur City Palace

 

Among other exhibits, there is Baggi Khana ( museum of cars), Govindji Temple etc.

We took our lunch at a Rajasthani restaurant. Our driver Durgaji suggested that place. Durgaji is an amazing driver, wonderful guide and friendly pal. However, we tasted Rajasthani thali, though it was pure veg, it was very tasty with lots of delicious dishes.

Shilpagram:  Your guide will take you to this shopping complex with utmost enthusiasm. There are many private shopping complexes in this name. Different garments, Bandhni  Sarees, upholstery, bed sheet, bed cover, decorative items are available here. You will find Rajasthani Rezai/Rajai here ( cost Rs.1000- Rs.15000). You can see the process of vegetable painting here.

Jaigarh Fort: As the day was coming to its end and we had two choices to choose- Jaigarh Fort and Amber Fort. I was very passionate about visiting the Amber Fort on the elephant but came to know that it is available until 12 noon. So I choose to go to the Jaigarh Fort and my choices have always made me proud. It was no exception this time also.

img_4622
Jaigarh Fort

 

It is on one of the peaks of the Aravalli’s. The road to the fort, keeping the Jal Mahal on the right, is beautiful with valleys and greeneries. A tempo traveller can go easily to the top, get down, collect the ticket and enter the fort, simple.

Jaivana Cannon is one of the biggest cannons on the wheels. It was fired once only as a test-fire. It has a range of 35 feet. The fireballs weighed 100kg. It is said that the gunners and soldiers became deaf after the test-fire due to the shocking sound. Later a pond was dug behind the fort so that the gunners and soldiers can save themselves from the aftershock.

img_4600
Peace Can(n)onised

 

We all were surprised with the present residents of this cannon– a pigeon couple; What a living Irony. Peace residing safely and confidently within the killing machine !!

Our guide said us something very story-like about this fort: during the emergency period (1975-1977) kilogrammes of gold ornaments were collected from the underground water tank in this fort.

img_4617
Sunset at Jaigarh Fort

 

The sunset at this fort will make you nostalgic; in fancy, you can imagine that Maharaja has just left the fort and is heading towards the Jal Mahal with his men. History becomes alive as the setting sun covers the fort with a golden aura.

img_4627
Jal Mahal: Jaipur

 

This was our first-day experience in Rajasthan, at Jaipur City.

Bapuji Bazar is a good place for buying souvenirs but you should know the art of bargain and this is an instinct, can’t be taught.

 

রাজস্থান ভ্রমণঃ বিকানীর

বিকানীর ঃ মরু-জাহাজ বন্দর

জয়পুরে রাত কাটিয়ে পরের দিন সকালে আমরা রওনা দিলাম বিকানীরের পথে| জয়পুর থেকে বিকানীর এর দূরত্ব বাস পথে প্রায় ৩৩৫ কিমি মানে ছয় থেকে সাড়ে ছয় ঘন্টার পথ | তবে এই পথ এত চওড়া আর প্রশস্ত যে এতক্ষণের যাত্রা গায়েই লাগে না|NH 11 বরাবর আরাবল্লীর বুক চিরে মরু শহর বিকানীর এর দিকে আমরা এগোতে থাকলাম | পথে কোথাও নেমে যদি আলু পরোটা, দই, মির্চি বড়া ইত্যাদি  জলখাবার খেয়ে নিতে পারেন তাহলে সারাদিন আর খাবার এর জন্য সময় নষ্ট করতে হবে না|

20161223_112147.jpg
Enjoyable breakfast with Aloo Paratha, Dahi, Mirchi Bada and what not

 

উট গবেষণা কেন্দ্র

20161223_175354.jpg
National Research Centre on Camel

 

আমাদের বিকানীর পৌঁছাতে প্রায় বিকেল সাড়ে চারটে বেজে গেল| আমরা বিকানীর ঢোকার পথে দেখতে গেলাম National Research Centre on Camel.  ঢোকার মুখেই টিকিট কাউন্টারে পাওয়া গেল উটের দুধের আইস ক্রীম | খেতে খেতে প্রথম অনুভব করলাম যে উট আমার চিন্তায় এতদিন বেশ অবহেলিত ছিল| তাই আর একটা আইস ক্রীম খেয়ে সংকল্প করলাম সম্যক জ্ঞান আহরন করেই  তবে যাবো |এটা এশিয়ার বৃহত্তম উট গবেষণা কেন্দ্র | এখানে মোট চার রকমের উট আছে- Bikaneri, Jaisalmeri, Kachchhi আর Mewari . রং ও শারীরিক গঠন দেখিয়ে গাইড চিনিয়ে দেবে উটের রকমফের |

IMG_4689.JPG
Camels at NRCC

 

৩০০ র ও বেশি উট একসঙ্গে এর আগে কখনো দেখি নি, কেমন একটা গর্ব হতে থাকল| মনে পড়ল লাইন দিয়ে উট ,মোষ আর গরু নিয়ে যেতে দেখেছি ছোটবেলায়, বকরি ঈদের আগে| তবে এখানে উটেদের যত্নয়াত্তি দেখে আর মাত্র ছয় ঘন্টা আগে জন্মানো উট শাবক দেখে বুঝলাম – উটেদের ও একটা নিজস্ব জগত আছে|

IMG_4702.JPG
New born Camel baby

 

উটের দুধের উপকারিতা সম্বন্ধে একটু জেনে নিন|

camel milk.jpg
Why you should drink Camel milk

 

Souvenir Shop এ আছে উটের লোমের থেকে তৈরি গায়ে দেবার চাদর,  উটের চামড়ার ব্যাগ, জুতো; হাড়ের তৈরি মাথার ক্লিপ আরো কত কি! দাম মোটামুটি সাধ্যের মধ্যেই|

IMG_4714.JPG
Souvenir shop at NRCC

 

এরপর সেন্টারের মিউজিয়াম দেখা| উটের খাদ্য শুধু কাঁটা গাছ নয়, বিভিন্ন ধরণের শাকসব্জি আর শস্য থরে থরে সাজিয়ে রাখা আছে এখানে|

20161223_174207.jpg
Camel Feed

 

এছাড়া আছে হরেকরকমের শৌখিন জিনিস যা উটের লোম, হাড় এবং চামড়া দিয়ে তৈরি|

IMG_4716.JPG
Made of Camel Bone
IMG_4719.JPG
Made of Camel Leather

 

বিশাল এলাকা জুড়ে এই কর্মযজ্ঞ দেখে মন ভরে যাবে|

 

করণিমাতা মন্দির

সন্ধ্যের মুখে আমরা পৌঁছালাম দেশনোক গঞ্জ এ করণিমাতা মন্দিরে| ইঁদুরের যে এত কদর কে জানতো!! গোটা মন্দির চত্বরে ছেয়ে আছে লক্ষ লক্ষ ইঁদুর|

IMG_4726.JPG
Karni Mata Temple : Deshnokgunge

 

করণিমাতা ছিলেন এক সন্ন্যাসিনী| এনাকে মা দুর্গার অবতার বলে মনে করা হয়| বিকানীরের দেশনোক ছাড়া ও উদয়পুরের মাচলা পর্বতে এবং আলোয়ারে করণিমাতার মন্দির আছে| কিন্তু একমাত্র দেশনোকের মন্দিরেই ইঁদুরবাহিনী আছে| এখানে সাদা ইঁদুর দেখবার জন্য ভক্তরা দীর্ঘ অপেক্ষা করে | সাদা ইঁদুররা মাতার বংশধর বলে বেশি পবিত্র| অন্য ইঁদুররা ও এখানে অত্যন্ত যত্নে আছে কারণ এরা মায়ের আদেশে ইঁদুর হয়ে আছে|

IMG_4731.JPG
The Idol at the temple

 

মন্দিরের উপরে জাল দিয়ে ঢেকে রাখা যাতে চিল বা অন্য শিকারী পাখি ইঁদুরদের কোনো ক্ষতি না করে| ইঁদুর এর খাওয়া প্রসাদ পাওয়ার জন্য মাতার ভক্তরা বসে থাকে| এমন কান্ড ভারতবর্ষেই ঘটে| এর নাম বিশ্বাস |

IMG_4738.JPG
Holy Rats at karnimata Temple

 

মন্দির চত্বরে বিরাট তামার ঢোলক বাজিয়ে রাজস্থানী লোক সংগীত হয়ে চলেছে| সব মিলিয়ে বেশ ব্যাপারটা বেশ – mousi-cal !

IMG_4743.JPG
Musical Welcome at Karnimata Temple

 

এরপর হোটেল| আমাদের হোটেলের ছাদে গিয়ে দেখি দূরে জ্বলজ্বল করছে লালগড় প্রাসাদ |

IMG_4747.JPG
Lalgarh Palace at night from our hotel

 

রাতে ঘুম আসতে দেরি হয় নি| শুধু দেখলাম ইঁদুরের গায়ে পা পড়ে যেতেই হাত জোড় করে দাঁড়িয়ে পড়েছি আর সেই ইঁদুর কালো চোখে আমার দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে ক্রমশ কালো কাচ্ছি উট হয়ে গেল | তারপর মুখ ভেংচে বলল,”উটেদের বাছবিচার থাকলেও তারা কাঁটা বেছে খায় না|”সবটা শুনে সবাই অবশ্য এর জন্য লংকা বড়াকে দায়ী করলো|

লালগড় প্রাসাদ

ঘন সবুজ গাছগাছালি দিয়ে ঘেরা লাল বেলে পাথরে তৈরি লালগড় প্রাসাদ বানিয়েছিলেন মহারাজা গঙ্গা সিংজী তাঁর পিতা লাল সিংজীর স্মৃতির উদ্দেশ্যে| স্থাপত্যের দিক দিয়ে দারুণ আভিজাত্যপূর্ণ এই প্রাসাদ এখন হেরিটেজ হোটেল হিসেবে ব্যবহৃত হয়|

IMG_4758.JPG
lalgarh Palace : Bikaner

 

এখানে আছে সাদুল মিউজিয়াম ও প্রাচীনা সংগ্রহশালা|

IMG_4756.JPG
Sadul Museum

 

এইসব দেখে নিয়ে চটজলদি চলে চলুন জুনাগড় ফোর্ট দেখতে|

জুনাগড় ফোর্ট

IMG_4777.JPG
Junagarh Fort : Bikaner

 

হ্যাঁ, ফোর্ট বটে একখান! সামনে দাঁড়ালেই একটা সমীহভাব জাগে মনে| কি বিশাল! কি রাজকীয়! পশ্চিমের সূরয পোল গেট দিয়ে প্রবেশ পথ| এখানে ফোর্ট থেকেই গাইড দেওয়া হয়|  ভিতরে ঢুকেই ডান ও বামদিকে সিঁড়ির মত রাজস্থানী স্থাপত্য চোখ টানে|

IMG_4868.JPG
Rajasthani Style Architecture

 

করন মহল

মুঘল আর রাজপুত স্থাপত্যের মেল বন্ধনে তৈরি এই মহল | মহারাজা গজ সিংজী লাহোর ও দিল্লির মোঘল দরবারের শিল্পীদের দিয়ে তৈরি করান এই মহল| এখানে আছে চারটি ছত্রি আছে আর আছে ছোট্ট একটা জলাশয় | হোলি খেলার ব্যবস্থা |

IMG_4780.JPG
Karan Mahal

 

ফুল মহল

রঙ বাহার মহল বললেও চলে| সোনালী রং এ আঁকা ফুলদানি,ফুল, লতা পাতা দেখতে দেখতে যদি আপনি নিজেকে রূপকথার রূপবতী কন্যা বা বসন্তকুমার বলে মনে নাই করেন তবে আপনার রাজস্থান ভ্রমন বৃথা|

IMG_4787.JPG
Phool Mahal

 

অনুপ মহল

আর ফিরে আসার ইচ্ছেটা পুরোপুরি চলেই গেল যখন অনুপ মহলের গিলটি করা রঙীন পৃথিবীতে পা রাখলাম| নিকুচি করেছে চাকরি-ঘর-বাড়ি| ঢিল মারি তোর খোলার চালে| আমার জন্য এই চিত্রবাহার কবে যেন তৈরি হয়েছে! এতদিন অপেক্ষা করেছে আমার স্পর্শের! এই সব কথা মুখ দিয়ে এমনিই আসবে যখন অনুপ মহলের দেওয়ালে আঁকা ছবি আপনার চোখ ধাঁধিয়ে দেবে|

IMG_4790.JPG
Anup Mahal

 

বাদল মহল

বৃষ্টির বড় অভাব এই মরুদেশে| তাই বাদলের আবাহনে এই মহলে| নীল রঙের আধিক্যে -নীল অঞ্জন ঘন | আর আছে— লক্ষ্মী-নারায়ণের যুগল মূর্তি|

20161224_114046.jpg
Badal Mahal

 

গজ মন্দির

রাজা গজ সিংজী আর তাঁর দুই রানীর একান্ত ব্যক্তিগত মহল এই গজ মহল|

IMG_4811.JPG
Gaj Mandir

 

দুঙ্গার মহল

আধুনিক বিকানীর এর স্রষ্টা মহারাজা দুঙ্গার সিংজীর মহল এটি | সাদার ওপর নানান রঙের কারুকার্য| এখানে কুলুঙ্গির মাঝে আছে একটি করে আয়না , তাতে রাজার প্রতিবিম্ব প্রতিফলিত হত| Narcissism এর চূড়ান্ত উদাহরণ আর কি! তবে এখন এসব আপনার| ক্যামেরা আপনার হলে  mirror will take you as the King.

20161224_113317.jpg
Dungar Mahal

 

দরবার হল

এখানে আছে রাও বিকা ( বিকানীর এর স্রষ্টা)র চন্দন কাঠের সিংহাসন | সংরক্ষিত আছে রাজপরিবারের কিছু অস্ত্র |  এরপর আছে বিক্রম বিলাস| এখানে বিভিন্ন রাজাদের হাওদা সংরক্ষিত আছে|

IMG_4849.JPG
Sandalwood throne at Darbar Hall

 

 

জুনাগড় ফোর্ট মিউজিয়াম

Armoury

IMG_4845.JPG
Armoury 1 : Junagarh Fort

 

অস্ত্রসম্ভার রক্ষণাবেক্ষণকে যখন শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া যায় তখন অস্ত্র দেখলে ভয় নয়, মনে ভালো লাগা থেকে যায়|

IMG_4836.JPG
Armoury 2 : Junagarh Fort

 

Rao Bikaji Heirloom Farmans Trust

IMG_4860.JPG
Telegraph Machine : Junagarh Fort

 

বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে রাজপরিবার এই ফোর্ট ছেড়ে চলে যায় লালগড় প্যালেসে আর Trust তৈরি করে রাজ পরিবারের ব্যবহৃত জিনিসপত্র এই ফোর্টে দিয়ে যায়|

IMG_4861.JPG
Wooden Dinning Table : Junagarh Fort

 

Transportation

IMG_4864.JPG
Palanquin : Junagarh Fort

 

এখানে বিভিন্ন পালকি ও অন্যান্য যানবাহন সংরক্ষিত আছে যা রাজপরিবার ব্যবহার করতো| সবচেয়ে নজর কাড়ে এই হেলিকপ্টার টি| মহারাজা গঙ্গা সিংজী প্রথম বিশ্বযুদ্ধে Bikaner State Force দিয়ে ব্রিটিশদের সাহায্য করেছিলেন আর তার পুরস্কার স্বরূপ ব্রিটিশরা তাঁকে ১৯২০ সালে জাহাজ ভর্তি করে যুদ্ধে ব্যবহৃত প্রচুর জিনিসপত্র পাঠায়| এসবের মধ্যে ছিল দুটি DH-9DE war plane এর ভাঙা অংশ | বিকানীরের মহারাজা করনি সিংজী ১৯৮৫ সালে শিল্পীদের সাহায্যে সেই সব ভাঙা অংশ জুড়ে একটা গোটা DH-9DE Haviland Plane খাড়া করেন| পুরস্কার বলে কথা!

IMG_4862.JPG
Haviland Plane

 

অথ চিন্তামনি (জুনাগড় ফোর্ট এর পুরোনো নাম) কথা|

 

IMG_4833.JPG
Jafri Art : Junagarh Fort

 

 

বিশাল এর মুখোমুখি হবার পর কি হয় ? তৈরি হয় এক ভীষন শূন্যতা|  সেই শূন্যতা পূর্ণ করতে আমরা গজনের গেলুম| আবার প্যালেস ঢুকতে কেউ আর রাজী না হওয়ায় বাইরে থেকে দেখে ঠিক করলাম রামদেওড়া যাবো|

IMG_4876.JPG
Gajner Palace

ফেলুদার স্মৃতি রোমন্থন করতে| আমাদের ড্রাইভার ও একপায়ে খাড়া , সে অবশ্য ফেলুবাবুর কথা জানে না| সে দেখাবে রামদেওড়াতে রামদেব বাবার ( পতঞ্জলি নয়) মন্দির|

20161224_184839.jpg
RamDev Baba Temple Entrance

 

রামদেববাবাকে প্রণাম জানিয়ে দৌড়লাম ষ্টেশনের দিকে| ষ্টেশনে দাঁড়িয়ে যা অনুভব করলাম তা ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন|

IMG_4893.JPG
Ramdevra : Railway Platform

 

গাড়িতে উঠে যখন রওনা দিলাম জয়সলমীরের দিকে তখন সন্ধ্যে গড়িয়ে রাত আর মনের ভিতরে শিহরণ কখন দেখবো-সোনার কেল্লা|

IMG_4892.JPG
Is  this  Mandar Bose!! ( ref : Sonar Kella- Satyajit Ray)

 

 

 

রাজস্থান ভ্রমণঃ জয়পুর

জয়পুরঃ গোলাপী শহর

রাজস্থান ভ্রমণ শুরু করা যেতে পারে বিকানীর থেকে অথবা জয়পুর থেকে| তবে জয়পুর থেকে শুরু করার একটা ভালো দিক হল- মানিয়ে নিতে সুবিধে হয়| জয়পুর দিল্লির কাছাকাছি শহর তাই এর একটা cosmopolitan character আছে | এখানে এক-দুদিন থাকলে রাজস্থান ভ্রমনের জন্য আপনি মানসিক প্রস্তুতি পেয়ে যাবেন| রাজস্থানী খাবার, স্থাপত্য, যানবাহনের গতিপ্রকৃতি এবং আবহাওয়া সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা তৈরী হয়ে যাবে, অনেকটা swimming pool এ  handle ধরে সাঁতার শেখার মত| বিকানীর তার রূপে রঙ্গে অনেক বেশি রাজস্থানী| হাবুডুবু খেয়ে, মাঝ দরিয়াতে সাঁতার শেখা যদি আপনার উদ্দেশ্য হয় তবে বিকানীর থেকেও শুরু করতেই পারেন | আর যাই হোক, এক্ষেত্রে ডুবে যাওয়ার ভয় তো নেই|

আমাদের দলে বিভিন্ন বয়সী লোকজন ছিল  তাই আমরা একটু বুঝেশুনে রাজস্থান ভ্রমণের শুরুয়াত করেছি জয়পুর থেকে|  জয়পুর এয়ারপোর্ট থেকে শহর জয়পুরে আসার পথে আমাদের পরিচয় হতে শুরু রাজস্থানের সঙ্গে| চওড়া রাস্তার ধারে চোখে পড়তে লাগল রাজস্থানি কারুকার্য করা বাড়ী, হোটেল , কলেজ | কখনো বা ছোট ছোট কেল্লা|

আমাদের হোটেল ছিল চিত্র কথা | এই বুটিক হোটেলের বাইরেটা দেখলেই মন ভালো হয়ে যাবে| নানা চিত্রে চিত্রিত চিত্র কথা |

chitra-katha
Hotel Chitra Katha

এখানে ব্যালকনি থেকে একটা ফোর্ট দেখা যায়| দেখলে মনে হয় কোনো ভূতের গল্প বইতে আঁকা ভূতের মুখ দেখছি|

img_4503
A fort with a ghostly smile

যন্তর মন্তরঃ

জয়পুরের মহারাজা দ্বিতীয় জয় সিং ১৭২৪ খ্রীঃ থেকে ১৭৩৫ খ্রীঃ এর মধ্যে মোট পাঁচটি যন্তর মন্তর তৈরী করেছিলেন-নতুন দিল্লী, জয়পুর, উজ্জ্বয়িনী, মথুরা,এবং বেনারসে| এদের মধ্যে সবচেয়ে বড় যন্তর মন্তরে পৌঁছে গেলাম আমরা গাইডের সঙ্গে|

img_4531
Jantar Mantar : Jaipur

এখানে মোট ১৯ টি astronomical instrument আছে| জ্যোতির্বিদ্যা যদি আপনার পাঠ্য বিষয় না হয় তাহলেও আপনার এখানে খুব ভালো লাগবে| বুঝতেই পারবেন না কতক্ষণ সময় কেটে গেছে এখানে | তার একটা বড় কারণ হল -গাইড এর বোঝানোর ক্ষমতা  আর হাতে নাতে করার অভিজ্ঞতা|

img_4519
Jai Prakash Yantra

জয় প্রকাশ যন্ত্রের সাহায্যে মাপা যায় স্থানীয় সময়, অক্ষাংশ,দ্রাঘিমাংশ আরো কত কি| এমন কি রাতে ও এই অর্ধ গোলক যন্ত্রটির ভিতরে প্রবেশ করে পর্যবেক্ষণ ও পরিমাপের কাজ করা যায়|  এছাড়া ও রয়েছে রাম যন্ত্র, দিগাংশ যন্ত্র, বৃহৎ সম্রাট যন্ত্র ,রাশি যন্ত্র ইত্যাদি|

img_4527
Brihat Samrat Yantra

আর আছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সূর্য ঘড়ি |

img_4509
The biggest Sun Dial

যদি অঙ্ক কষতে কষতে একঘেয়ে লাগে তবে রাশি যন্ত্রের কাছে বসে একটু জিরিয়ে নিন| হঠাৎ চোখে পড়ে যেতে পারে Damsel Crane। এর চলার ছন্দে তখন আপনার মনে বাজবে – ‘ছন্দে ছন্দে দুলি আনন্দে’ , করি অঙ্কে ভুল গো |

img_4538
Damsel Crane

যন্তর মন্তর এর প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা (জন প্রতি)

জয়পুর সিটি প্যালেস

“রাজস্থানের রাজধানী জয়পুর  এর স্থপতি বিদ্যাধর ভট্টাচার্য” এই কথাটা খুব বেশি করে মনে পড়ে সিটি প্যালেসে এলে| ভারতীয় ও মোঘল স্থাপত্য শিল্পের মেলবন্ধনে লাল ও গোলাপী বেলে পাথরে  তৈরী এই প্যালেস বাঙালির মনে গর্বের সঞ্চার করবেই|

img_4585
Sabha Niwas : Diwan-i-Khas

এখানে বিখ্যাত দুটি মহল- মুবারক মহল ও চন্দ্র মহল|

মুবারক মহল কে আমাদের গাইড টেক্সটাইল মহল বলেই পরিচয় করালো কারণ এখানে রাজ পরিবারের ব্যবহৃত কাশ্মীরি পশমিনা শাল, রেশম বস্ত্র, বিভিন্ন কারুকার্যখচিত পোষাক ইত্যাদি সংগৃহিত আছে| আর আছে সোয়াই প্রথম মাধো সিং এর পোষাক| এটি দেখলে অনেকেই বেশ কিছুদিনের জন্য ডায়েট চার্টকে পাত্তা না দেবার সাহস পেয়ে যাবেন| এই মহারাজা ছিলেন ৩.৯ ফুট চওড়া আর ২৫০ কেজি ছিল তাঁর ওজন| এর সঙ্গে বিনীত গাইড যোগ করলেন ,” ইনকা একশো আট বিবিয়াঁ থে” !!

img_4559
Mubarak Mahal

অস্ত্র কক্ষে বা Armoury Mahal এ আছে রাজাদের ব্যবহৃত অস্ত্রসম্ভার| আর দেওয়ান-ই -আম অর্থাৎ আমজনতার দরবার এ সংরক্ষিত আছে দুটি বিশাল বড় রৌপ্য জলপা্ত্র , এদের ওজন ৩৪০ কেজি করে এবং ৪০০০লি জল এতে রাখা যায়| মহারাজা দ্বিতীয় মাধো সিং এডোয়ার্ড দ্য সেকেন্ড এর অভিষেকের উদ্দেশ্য ইংলন্ড যাবার সময় এই দুটি পাত্রে গঙ্গাজল নিয়ে গেছিলেন পান করার জন্য| ইংলন্ডের জল পান করে ধর্ম খোয়ানোর ইচ্ছে তাঁর ছিল না| তাই এই সামান্য ব্যবস্থা!এইসব দেখে মনে পড়ে যাবে Jim Corbett এর  My India তে উল্লিখিত গঙ্গা জল নিয়ে রাজা মহারাজাদের নদী পারাপার এবং ছুতমার্গের কথা |

img_4575
Silver Urn

চন্দ্র মহলের বেশির ভাগ অংশেই বর্তমানে রাজপরিবার বসবাস করে| এর সাতটি তলার মধ্যে নীচের তলায় একটি মিউজিয়াম আছে| এই মহলে ঢুকতে গেলে ২০০০ টাকা প্রবেশ মূল্য| এখানে দুপুরে খাওয়ার জন্য ক্যাফেটরিয়া আছে|

img_4572
Diwan -i-aam

এছাড়া এই প্যালেসে আছে মহারানী প্যালেস, ভাগগি খানা ( রাজ পরিবারের গাড়ির সংগ্রহশালা) ও গোবিন্দ মন্দির|

img_4561
Royal Welcome at the Royal Palace

আপনি যদি মহারাজা এক্সপ্রেস বা প্যালেস অন হুইলসে করে রাজস্থান ভ্রমনে আসেন তবে এখানে আপনার জন্য থাকবে রাজকীয় অভ্যর্থনা| সুসজ্জিত উট, ঘোড়া, বাদ্য যন্ত্র আর কাচ্চি ঘোড়ি নাচ সহযোগে আপনাকে নিয়ে যাওয়া হবে চন্দ্র মহলের দিকে| আর আমার মত দর্শকদের জন্য তৈরি হবে রাজকীয় পরিবেশ,” মেজাজটাই তো আসল রাজা|”

img_4557
Kachhi Ghodi Dance

জয়পুর সিটি প্যালেস দেখে দুপুরের খাওয়া সেরে নিতে পারেন কোনো রাজস্থানী থালি সহযোগে| আমাদের ড্রাইভার দুর্গাজী রাজপুত| এত উপকারী ও দরদী ড্রাইভার আমি জীবনে খুব কমই দেখেছি| আমরা রাজস্থানী লাঞ্চ করবো শুনে দুর্গাজী আমাদের নিয়ে গেল এক রাজস্থানী রেস্টোরান্টে | হরেকরকম পদ দিয়ে খেলাম রাজস্থানী থালি সঙ্গে লস্যি ( এরা বলে ছাস ) আর মশলা পাপড়|

20161222_145104-copy
Rajasthani Thali

শিল্পগ্রামঃ

এরপর গাইড আপনাকে নিয়ে যাবে শিল্পগ্রামে| এখানে একাধিক শিল্পগ্রাম আছে| এগুলো মূলতঃ প্রাইভেট শপিং সেন্টার, এখানে নানা ধরনের রেজাই ( ১০০০টাকা -১৫০০০টাকা), বেড সীট, বেড কভার,বাঁধনী শাড়ি, সালোয়ার ইত্যাদি পাওয়া যায়| ভেজিটেবিল পেন্টিং হাতে করে দেখানোর ব্যবস্থাও আছে|

জয়পুর শহরের দুটো অংশ- পুরোনো জয়পুর পুরোটাই গোলাপী রঙের | নতুন অংশটা গোলাপী নয়|

 জয়গড় দুর্গঃ

যদি হাতে কম সময় থাকে তাহলে তাড়াতাড়ি রওনা হতে হবে জয়গড় দুর্গের দিকে| জল মহলকে ডান হাতে রেখে বাঁ দিকে আরাবল্লী পাহাড়ের উপরে ওঠার পথটি খুবই মনোরম| পাহাড়ের চূড়ায় আছে জয়গড় দুর্গ| জিপ, টেম্পো ট্রাভেলর এখনে উঠে যেতে পারে|

img_4622
Jaigarh Fort

এখানে আছে পৃথিবীর অন্যতম বৃহত চাকাওলা কামান -জয়বান| এটি নাকি একবারই দাগা হয়েছিল ১০০ কেজি বারুদের গোলা দিয়ে আর তা ৩৫ কিমি দূর পর্যন্ত গিয়েছিল| তবে যারা কামান দেগেছিল তারা নাকি কালা হয়ে গিয়েছিল| পরে দুর্গের ভিতরে একটা জলাশয় খনন করা হয়, যাতে কামান চালানোর পরেই সৈন্যরা  লাফিয়ে পরে বিকট আওয়াজের হাত থেকে বাঁচতে পারে| তবে তার আর দরকার হয় নি কারণ কামান আর কখনই চলেনি|

img_4600
Peace Can(n)onised

এখন কামানের ব্যারেলের ভিতরের বাসিন্দা এক কবুতর দম্পতি | যুদ্ধের যন্ত্রে শান্তির মন্ত্র –অবাক হতেই হবে |

img_4617
Sunset at Jaigarh Fort

পড়ন্ত বিকেলে জয়গড় দুর্গের প্রাকারে সোনালী রোদ পড়ে দুর্গের ঐতিহাসিক রূপকে উজ্বল করে তোলে| দূরে মান সাগর লেকের জলে পদ্ম ফুলের মত ফুটে আছে জল মহল| সব কিছু মিলিয়ে মনে হবে এই কিছুক্ষণ আগেই বুঝি রাজা ছিলেন তাঁর পার্ষদ সমেত, এই বুঝি রওনা হয়েছেন জলমহলের দিকে| ইতিহাস যেন জীবন্ত হয়ে আছে এখানে|

img_4627
Jal Mahal

এই ছিল আমাদের প্রথম দিনের রাজস্থান ভ্রমনের অভিজ্ঞতা|  জয়পুরে আমরা যেটুকু দেখিছি তাই এখানে বললাম|  এখান থেকে টুকটাক উপহারসামগ্রী কিনতে হলে বাপু বাজার যাওয়া যায়| আর দরাদরির ব্যাপারে বাঙালি পাঠককে আমি মোটেও জ্ঞান দিয়ে চাই না|

img_4605
A View of the Man Sagar Lake from the Jaigarh Fort

Blog at WordPress.com.

Up ↑